আখেরাত- মৃত্যু এক চরম সত্য
ইসলামী জীবন

আখেরাত- মৃত্যু এক চরম সত্য

দুনিয়াতে আমরা দেখি প্রতিটি প্রাণীর মৃত্যু আছে দুনিয়ার জীবন চিরস্থায়ী নয় হাসি-আনন্দ সুখ ও দুঃখের এই জীবন একদিন শেষ হয়ে যায় এই মৃত্যু সকলের জীবনে একদিন না একদিন আসবেই মৃত্যু কখন আসবে তা কেউ জানে না পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে অবশেষে প্রত্যেক ব্যক্তিকে মরতে হবে ।-আল ইমরান ১৮৫।

মৃত্যুর পরও জীবন

মৃত্যু জীবনের এক চরম সত্য। তাই স্বাভাবিকভাবেই সকলের মধ্যে প্রশ্ন জাগে মৃত্যু জিনিস টা কি? মানুষ মৃত্যুর পর যায় কোথায় ?এই সঙ্গে আরও একটা প্রশ্ন এসে দেখা দেয় তাহলে মৃত্যুর মাধ্যমে আমাদের এই দুনিয়ায় জীবনের সব ভালো-মন্দের কাজের ফলাফল কি শেষ হয়ে যায়। দুনিয়ার জীবনে মানুষ যা কিছু কষ্ট- ভালো কেনো বা মন্দ এরপর কি এই দুনিয়াতে শেষ ।বিষয়টা আরো একটু গভীরভাবে ভাবি।

আমরা দেখি এই দুনিয়ার জীবনে হাজারো কষ্টের মধ্যে হাজারো প্রতিকূলতার মধ্যে অনেক মানুষ আছেন যিনি সৎ পথে টিকে থাকার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন সব সময়। তিনি অন্যের উপকার করেছেন অন্যের জন্য জীবন বিলিয়ে দিচ্ছেন কিন্তু তিনি এই দুনিয়াতে এই সৎকাজের জন্য পুরোপুরি কোন পুরস্কার পাচ্ছেন না ।বরং পাচ্ছেন উল্টোটা দুর্নাম ও নির্যাতন কখনো বা তার ভাগ্যে জোটে মৃত্যুদণ্ড। তাহলে তিনি  কি  যেসব কাজ করলেন তার সবই বিফলে যাবে।তার মৃত্যুর পর তার সব কাজের সুফল এই দুনিয়াবাসী অনন্তকাল ধরে পাবেন আর তিনি নিজে তার ফলাফল পাবেন অসম্পূর্ণ এটা কিভাবে মেনে নেয়া যায়।

অন্যদিকে একজন লোক জীবনভর অন্যায় কাজ করলো আমরা দেখলাম সে হয়তো তার দুষ্কর্মের জন্য দুনিয়ায় কিছুটা শাস্তি পেল ।কিন্তু তার দুষ্কর্মের শাস্তি সে পুরোপুরি পেল না কখনো কখনো এই দুষ্কর ব্যক্তি দুনিয়ার সকল কে ফাঁকি দিয়ে দুনিয়ার শাস্তি থেকেও বেরিয়ে যায় । সে চোখের আড়ালে দুষ্কর্ম চালিয়ে যায় অথচ তার কর্মের ফল অন্যরা পেতেই থাকে ।এই জুলুমের পুরোপুরি শাস্তি সে কোনদিন পাবে না দুনিয়ায় যে জুলুম করেছে যে খারাপ কাজ করেছে তার মৃত্যুর পর তার পরিণাম দুনিয়াবাসী ভোগ করতেই থাকবে আর মৃত্যু এসে এই জালিমকে একেবারেই তার করা খারাপ কাজের  শাস্তি থেকে বাচিয়ে দেয়। এ কি কখনো হতে পারে?

মোটকথা আমরা দেখি দুনিয়ার এই সংক্ষিপ্ত জীবনে মানুষ কখনো তার ভাল এবং মন্দ কাজের সঠিক পুরস্কার কিংবা শাস্তি পেতে পারেনা । বিবেকের কথা হলো মৃত্যুর পরও তার ভাল ও মন্দ কাজের জন্যে পুরস্কার কিনবা শাস্তির ব্যবস্থা থাকা উচিত।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *